আইনি কারণে ওই নারীর নাম প্রকাশ করা হয়নি। ছবি: সংগৃহীত

মেয়ের ধর্ষণ চেষ্টাকারীদের শাস্তি দিয়ে মায়ের নাম এখন ‘সিংহ মা’

ওই মেয়ের মা প্রায় দুই মাইল দূরে একটি বাড়ির কাছে যেয়ে শুনতে পান মেয়ের অার্তচিৎকার।

প্রিয় ডেস্ক
ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশিত: ২০ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৫:২৪ আপডেট: ২০ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৫:৩১
প্রকাশিত: ২০ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৫:২৪ আপডেট: ২০ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৫:৩১


আইনি কারণে ওই নারীর নাম প্রকাশ করা হয়নি। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) মেয়ের জন্য মা ঘরের ভেতরে রান্না করছিলেন। হঠাৎ মেয়ের বান্ধবী এসে খবর দেন যে তিন জন অপিরিচিত ব্যক্তি তার মেয়েকে তুলে নিয়ে গেছে। মেয়েটির মা সেই মুহূর্তে পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। পরে বাড়িতে থাকা সবজি কাটার ছুরি নিয়েই মেয়েকে বাঁচাতে বেরিয়ে যান তিনি। ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ আফ্রিকায়।

আনন্দবাজারের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওই মেয়ের মা প্রায় দুই মাইল দূরে একটি বাড়ির কাছে যেয়ে শুনতে পান মেয়ের অার্তচিৎকার। সাথে সাথে দরজা ধাক্কা দিয়ে ঘরের ভেতরে ঢুকতেই তিনি দেখতে পান তার মেয়েকে তিন জন পুরুষ ধর্ষণের চেষ্টা করছে। মেয়েকে বাঁচাতে ওই মুহূর্তে এলোপাথাড়ি ছুরিকাঘাত করতে শুরু করেন ওই মা। সে সময় ছুরির আঘাতে ওই তিন জন ব্যক্তির একজনের তখনই মৃত্যু হয়। এ ছাড়া গুরুতর আহত হয় অন্য দুজন।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ধর্ষণের চেষ্টাকারী ওই তিন জনের নাম জোলিসা সিয়েকা, এমসেদিসি ভুবা ও জামিলা সিয়েকা বলে জানা গেছে। ওই মেয়ের মায়ের ছুরির আঘাতে ঘটনাস্থলেও জামিলা সিয়েকা মারা যান। অার সন্তানকে এভাবে বিপদের হাত থেকে বাঁচানোর পর থেকেই ওই নারীকে তার সাহসের জন্য ডাকা হতে থাকে ‘লায়ন মামা’ বা ‘সিংহ মা’ বলে।

তবে পুলিশ সেই নারীকে এক ব্যক্তি খুন আর দুই ব্যক্তিকে আঘাত করার অপরাধে গ্রেফতার করে। তবে বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর সাধারণ মানুষ সামনের দিকে এগিয়ে আসেন। প্রায় ১০ হাজার পাউন্ড তোলা হয় তার আইনি লড়াইয়ে সহায়তা করার জন্য।

শেষ পর্যন্ত এক বছর ধরে বিচার চলার পর ওই নারী মুক্তি পান। আর বেঁচে থাকা ওই দুই ধর্ষণের চেষ্টাকারীকে আদালত ৩০ বছরের কারাদণ্ডের আদেশ দেন।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, আইনি কারণে ওই নারীর নাম প্রকাশ করা হয়নি। তবে সন্তানকে রক্ষা করতে ‘সিংহ মার’ এই মূর্তিদান প্রশংসা পেয়েছে বিশ্ব জুড়েই।  ‘সিংহ মা’ জানান, অপরাধীরা সাজা পাওয়ায় তিনি খুশি। 

প্রিয় সংবাদ/আশরাফ/রুহুল

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...