এফডিসিতে হয় টেলি সামাদের চতুর্থ জানাজা। ছবি: সংগৃহীত

নয়াগাঁওয়ে ফিরে যাচ্ছেন টেলি সামাদ

এফডিসিতে বর্ষীয়ান এই কৌতুক অভিনেতার জানাজায় আসেননি বর্তমান প্রজন্মের কোনো নায়ক-নায়িকা, কিংবা চলচ্চিত্র নির্মাতাও।

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রিয়.কম
প্রকাশিত: ০৭ এপ্রিল ২০১৯, ১৩:৪৯ আপডেট: ০৭ এপ্রিল ২০১৯, ১৩:৪৯
প্রকাশিত: ০৭ এপ্রিল ২০১৯, ১৩:৪৯ আপডেট: ০৭ এপ্রিল ২০১৯, ১৩:৪৯


এফডিসিতে হয় টেলি সামাদের চতুর্থ জানাজা। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) এফডিসিতে বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় কমেডি অভিনেতা টেলি সামাদের চতুর্থ জানাজা সম্পন্ন হয়েছে। পূর্ব নির্ধারিত সময় অনুযায়ী আজ বেলা ১১টায় এফডিসিতে জানাজা হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদের আসতে কিছু সময় দেরি হওয়া দুপুর সাড়ে ১২টায় জানাজা সম্পন্ন হয়। জানাজা শেষে এই অভিনেতার মরদেহ নিয়ে মুন্সিগঞ্জের উদ্দেশে রওনা দিয়েছেন তার স্ত্রী ও সন্তানরা।

৬ এপ্রিল, শনিবার দুপুর দেড়টার দিকে রাজধানীর পান্থপথের স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান টেলি সামাদ। কিন্তু এফডিসিতে বর্ষীয়ান এই কৌতুক অভিনেতার জানাজায় আসেননি বর্তমান প্রজন্মের কোনো নায়ক-নায়িকা, কিংবা চলচ্চিত্র নির্মাতাও।

এফডিসিতে টেলি সামাদের জানাজায় ছিলেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ, তথ্য সচিব আবদুল মালেক, নায়ক ও সাংসদ ফারুক, মুশ‌ফিকুর রহমান গুলজার, নায়ক আলমগীর, জায়েদ খান, আলী রাজ, অমিত হাসান, সম্রাট, অঞ্জনা, সংগীতশিল্পী আবদুল হাদি, ফকির আলমগীরসহ কয়েকজন নির্মাতা।

টেলি সামাদের বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর। ১৯৬৬ সালে পরিচালক নজরুল ইসলামের ‘কার বউ’ চলচ্চিত্রে তিনি প্রথম অভিনয় করেন।

চার দশকে প্রায় ৬০০ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। টেলি সামাদ শেষ কাজ করেছেন ২০১৫ সালে অনিমেষ আইচের ‘জিরো ডিগ্রি’ ছবিতে।

এফডিসিতে টেলি সামাদের জানাজার পরে মোনাজাতে অংশ নেন উপস্থিত সকলে। ছবি: সংগৃহীত

এফডিসিতে টেলি সামাদের জানাজা হওয়ার আগে আরও তিন জায়গায় তার জানাজা হয়েছে। তার প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয় শনিবার বাদ মাগরিব ধানমন্ডির তাকওয়া মসজিদে। দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয় বাদ এশা পশ্চিম রাজাবাজার তার বাড়ি সংলগ্ন মসজিদে। তৃতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয় মগবাজারে দিলু রোড এলাকায়।

এদিকে টেলি সামাদের শেষ ইচ্ছে অনুযায়ী তার দাফন হবে মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলায় নয়াগাঁও গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে।

টেলি সামাদ দীর্ঘদিন ধরেই খাদ্যনালী, ফুসফুসের সমস্যাসহ একাধিক রোগে ভুগছিলেন তিনি। টেলি সামাদের পারিবারিক একটি সূত্র জানিয়েছে, বাদ আসর টেলি সামাদের পঞ্চম নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে মুন্সিগঞ্জের নয়াগাঁও গ্রামে। তারপরই তাকে দাফন করা হবে।

দীর্ঘদিন ধরে নানা শারীরিক জটিলতায় ভুগছিলেন টেলি সামাদ। গত পরশু দিন (৪ এপ্রিল) তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল।

কমেডিয়ান হিসেবে বেশিরভাগ দর্শক টেলি সামাদকে চিনলেও প্রায় ৪০টির বেশি চলচ্চিত্রে প্লেব্যাক করেছেন তিনি। ‘মনা পাগলা’ ছবির সংগীত পরিচালনাও করেছেন তিনি।

১৯৪৫ সালের ৮ জানুয়ারি ঢাকার বিক্রমপুরে জন্মগ্রহণ করেন এই অভিনয়শিল্পী। মুন্সীগঞ্জ শহরের উপকণ্ঠ নয়াগাঁও এলাকার সন্তান টেলি সামাদ। প্রকৃত নাম আবদুস সামাদ থেকে পরে টেলি সামাদ নামেই পর্দায় পরিচিত হয়ে ওঠেন তিনি।

সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলে বেড়ে ওঠা টেলি সামাদের বড়ভাই বিখ্যাত চারুশিল্পী আব্দুল হাইয়ের পদাঙ্ক অনুসরণ করে পড়াশোনা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলায়।

প্রিয় বিনোদন/রুহুল