প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কাউন্সিলের সভায় তিনি এ নির্দেশনা ও আহ্বান জানান। ছবি: সংগৃহীত

দুর্যোগ মোকাবিলায় সচেতনতা বাড়ানোর আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

অগ্নিকাণ্ড, ঘূর্ণিঝড়, জলোচ্ছ্বাস, বন্যাসহ প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোকে সবসময় সজাগ থাকার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রিয় ডেস্ক
ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশিত: ১৮ এপ্রিল ২০১৯, ১৬:৩৭ আপডেট: ১৮ এপ্রিল ২০১৯, ১৬:৩৭
প্রকাশিত: ১৮ এপ্রিল ২০১৯, ১৬:৩৭ আপডেট: ১৮ এপ্রিল ২০১৯, ১৬:৩৭


প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কাউন্সিলের সভায় তিনি এ নির্দেশনা ও আহ্বান জানান। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) যেকোনো ধরনের দুর্যোগ প্রতিরোধে করণীয় সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করতে ব্যাপক প্রচারণা চালানোর ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একই সঙ্গে তিনি এ ধরনের সংকট মোকাবিলায় সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোকে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন।

১৮ এপ্রিল, বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে জাতীয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কাউন্সিলের সভায় তিনি এ নির্দেশনা ও আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, ‘মানুষের সৃষ্ট দুর্যোগের পাশাপাশি যেকোনো দুর্যোগ আসলে কী করতে হবে আর কী করতে হবে না, সে সম্পর্কে জনসচেতনতা গড়ে তোলা দরকার।’

এ ছাড়া দুর্যোগ ও দুর্ঘটনায় ব্যবস্থা নেওয়ার পাশাপাশি ব্যক্তিগত পর্যায়েও সবাইকে নিরাপত্তার বিষয়ে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। 

শুধু দুর্যোগ মোকাবিলার জন্য নয়, বরং অগ্নিদুর্ঘটনার মতো মানুষের সৃষ্ট যেকোনো দুর্যোগ প্রতিরোধে যথাযথ পরিকল্পনার মাধ্যমে ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘দুর্যোগ আসলে করণীয় সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করা দরকার। এ জন্য নির্দেশনাগুলো ব্যাপকভাবে প্রচার করা দরকার। আমাদের দুর্যোগ প্রস্তুতি সম্পর্কে নিয়মিত পর্যালোচনা করতে হবে এবং করণীয় বিষয়গুলো নির্ধারণ করতে হবে।’

বনানীর এফ আর টাওয়ারের অগ্নিকাণ্ড প্রসঙ্গে কথা বলার সময় প্রধানমন্ত্রী অগ্নিনির্বাপক কর্মীসহ আগুনে নিহতদের রুহের মাগফিরাত কামনা করেন।

তিনি বলেন, ‘মানুষকে সতর্ক করা দরকার, যাতে মানুষের সৃষ্ট দুর্ঘটনা না ঘটে।’ 

বিদ্যুৎ, গ্যাস সিলিন্ডার ও দাহ্য পদার্থ ব্যবহারের সময় জনগণকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

জনগণকে নিজের কর্মস্থল ও বাড়িতে নিরাপত্তার বিষয়ে সতর্ক এবং যেকোনো দুর্যোগ মোকাবিলায় প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আধুনিকায়ন আমাদের আরাম দেয়, সুবিধা দেয়। আবার দুর্ঘটনার ঝুঁকিও সৃষ্টি করে। ঝুঁকি কমাতে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে।’

১৬ কোটি মানুষ বসবাস করা বাংলাদেশ অত্যন্ত ঘনবসতিপূর্ণ দেশ উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ভৌগোলিক অবস্থানের কারণেও আমাদের দেশ দুর্যোগপ্রবণ।’

বিএনপি-জামায়াতের শাসনামলে ১৯৯১ সালের ঘূর্ণিঝড়ের কথা স্মরণ করে তিনি বলেন, ‘তৎকালীন সরকার দুর্যোগ সম্পর্কে সচেতন ছিল না, যার জন্য হাজার হাজার মানুষ ঘূর্ণিঝড়ে মারা যায়।’

এ প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, ‘সরকার ১৯৯৭ সালের ঘূর্ণিঝড় সফলভাবে মোকাবিলা করেছে এবং ১৯৯৮ সালের বন্যায় উল্লেখযোগ্যভাবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ হ্রাস করেছে।’

প্রিয় সংবাদ/কামরুল/আজাদ চৌধুরী