কনডম বেশি সময় শরীরের ভেতরে রয়ে গেলে ব্যাকটেরিয়াল ভ্যাজিনোসিস বা ইস্ট ইনফেকশন হতে পারে। ছবি: সংগৃহীত

শরীরের ভেতর কনডম আটকে গেলে কী করবেন?

যৌন অন্তরঙ্গতার সময় অনেক অঘটনই ঘটতে পারে।

কে এন দেয়া
সহ-সম্পাদক
প্রকাশিত: ৩০ এপ্রিল ২০১৯, ১৭:২৮ আপডেট: ৩০ এপ্রিল ২০১৯, ১৭:২৮
প্রকাশিত: ৩০ এপ্রিল ২০১৯, ১৭:২৮ আপডেট: ৩০ এপ্রিল ২০১৯, ১৭:২৮


কনডম বেশি সময় শরীরের ভেতরে রয়ে গেলে ব্যাকটেরিয়াল ভ্যাজিনোসিস বা ইস্ট ইনফেকশন হতে পারে। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) যৌন অন্তরঙ্গতার সময় অনেক অঘটনই ঘটতে পারে। এর মাঝে একটি হলো, যৌনকর্মের শেষে বা মাঝপথে শরীরের ভেতরে কনডম আটকে যাওয়া। এতে অনেকেই ভয় পান, অস্থির হয়ে যান। কিন্তু তা না করে বরং সঠিক উপায়ে তা বের করা দরকার। জেনে নিন কাজটি কীভাবে করবেন।

প্রথমত, আটকে যাওয়া কনডমটি হাত দিয়ে বের করতে পারছেন না, এমন অবস্থায় শান্ত থাকুন। আপনি ভয় পেয়ে বা অস্থির হয়ে গেলে আপনার ভ্যাজাইনাল মাসলগুলো শক্ত হয়ে আসবে, তখন ভেতরে আঙুল ঢুকিয়ে কনডম বের করে আনাটা আরও কঠিন হয়ে যাবে।

এরপর আপনি গরম পানিতে গোসলের চেষ্টা করতে পারেন। এতে শরীর শিথিল হবে। হাতের নখ বড় হলে তা কেটে ছোট করে নিন। এরপর একটি তর্জনি ভেতরে ঢুকিয়ে দেখুন কনডমটি কোথায় আছে। আঙুল দিয়ে টেনে বের করে আনার চেষ্টা করুন। 

কোনোভাবেই চিমটা বা টুইজার জাতীয় কোনো যন্ত্র ব্যবহার করবেন না। কারণ এতে রক্তপাত হতে পারে।

যদি কনডমটি এতই ভেতরে ঢুকে যায় যে আঙুল দিয়ে নাগাল পাচ্ছেন না, তখন কী করবেন?

সারভিক্স বা জরায়ুমুখের কাছাকাছি কনডম চলে গেলে নাগাল পাওয়া যায় না। অথবা ভ্যাজাইনাল ফর্নিসেজ বা সারভিক্সের কাছাকাছি ছোট ছোট পকেটের মতো এলাকাতেও তা আটকে থাকতে পারে। এ সময়ে আপনি একজন গাইনোকোলজিস্টের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন। প্যাপ স্মিয়ার ধরনের টেস্ট করলে যে কাজটি করা হয়, সেভাবেই আপনার শরীর থেকে কনডম বের করে আনা হবে। একটি স্পেকুলামের সাহায্যে আপনার ভ্যাজাইনা বা যোনি উন্মুক্ত করে এরপর ডাক্তার একটি ছোট যন্ত্রের সাহায্যে কনডমটি বের করে আনবেন।

দুর্ভাগ্যবশত যদি আপনার পায়ুপথে কনডম আটকে যায় তাহলেও তা আঙুল দিয়ে বের করে আনতে পারেন। বেশি ভিতরে চলে গেলেও সমস্যা নেই, পরের বার মলত্যাগের সময়ে বের হয়ে আসবে। না এলে আপনি ল্যাক্সাটিভ ধরনের ওষুধ খেয়ে বের করার চেষ্টা করতে পারেন।  তাতেও কাজ না হলে আপনার উচিত কলোরেক্টাল সার্জন বা গ্যাস্ট্রোএন্টেরোলজিস্টের সঙ্গে যোগাযোগ করা।

জেনে রাখুন, কনডম বেশি সময় শরীরের ভেতরে রয়ে গেলে ব্যাকটেরিয়াল ভ্যাজিনোসিস বা ইস্ট ইনফেকশন হতে পারে। তাই তা বের করে ফেলুন উপরের কোনো এক উপায়ে। কনডম বের হয়ে আসার পর আপনার উচিত গর্ভধারণ বা যৌন রোগের সংক্রমণ হয়েছে কি না তা পরীক্ষা করে নেওয়া।

ভবিষ্যতে এমন দুর্ঘটনা এড়াতে কী করবেন? সঠিক আকারের কনডম ব্যবহার করুন এবং অন্তরঙ্গতার সময়েও কনডম সঠিক উপায়ে ব্যবহার করুন।

সূত্র: হাফিংটন পোস্ট

প্রিয় লাইফ/আজাদ চৌধুরী