মিমি চক্রবর্তী। ছবি: সংগৃহীত

বিজেপি প্রার্থীকে হারিয়ে অভিনেত্রী থেকে নেত্রী হলেন মিমি

মমতা ব্যানার্জীর আহ্বানেই নাম লিখিয়েছিলেন রাজনীতিতে। আর প্রথমবার নির্বাচনে নেমেই রীতিমত বাজিমাত করলেন এই নায়িকা।

শামীমা সীমা
সহ সম্পাদক
প্রকাশিত: ২৪ মে ২০১৯, ০৯:১৬ আপডেট: ২৪ মে ২০১৯, ০৯:১৬
প্রকাশিত: ২৪ মে ২০১৯, ০৯:১৬ আপডেট: ২৪ মে ২০১৯, ০৯:১৬


মিমি চক্রবর্তী। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) প্রথমবার রাজনীতিতে অংশ নেওয়া চিত্রনায়িকা মিমি চক্রবর্তী পশ্চিমবঙ্গের যাদবপুর থেকে প্রায় সোয়া দুই লাখ ভোট বেশি পেয়ে লোকসভা নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছেন। টলিউডের শীর্ষ নায়িকাদের একজন মিমি। মমতা ব্যানার্জীর আহ্বানেই নাম লিখিয়েছিলেন রাজনীতিতে। আর প্রথমবার নির্বাচনে নেমেই রীতিমত বাজিমাত করলেন এই নায়িকা।

পশ্চিমবঙ্গের প্রায় সব আসনেই হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়েছে বিজেপি ও তৃণমূলের। এমনকি তৃণমূলের বাঘা বাঘা নেতারাও হারতে বসেছিলেন। তৃণমূলের এমন ক্রান্তিলগ্নে প্রায় সোয়া দুই লাখ ভোট বেশি পেয়ে পাস করেছেন মিমি।

মমতা ব্যানার্জীর আহ্বানেই রাজনীতিতে নাম লিখিয়েছিলেন মিমি চক্রবর্তী। ছবি: সংগৃহীত

পশ্চিম বাংলার সংবাদমাধ্যম থেকে জানা গেছে, যাদবপুর থেকে মিমি প্রায় দুই লক্ষ ২২ হাজার ৪৯৯ ভোটে জিতেছেন। মিমির প্রাপ্ত ভোট পাঁচ লক্ষ ৬৪ হাজার ৯১৯টি। তার বিপক্ষে দাঁড়ানো বিজেপি প্রার্থী অনুপম হাজরা পেয়েছেন তিন লক্ষ ৪২ হাজার ৪২০ ভোট। অন্যদিকে বামফ্রন্টের প্রার্থী বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য্য পেয়েছেন দুই লক্ষ ৫৪ হাজার ১৭৩ ভোট।

এই প্রসঙ্গে মিমি সংবাদমাধ্যমে বলেন, ‘খুব ভালো লাগছে। যাদবপুরে রেকর্ড পরিমাণে মানুষ আমাকে জিতিয়েছেন। এটা ভীষণ আনন্দের। এতো সংখ্যক ভোট দিয়ে ভোটাররা যে আশীর্বাদ করেছেন সেটা ব্যক্ত করার ভাষা পাচ্ছি না। তাদের জন্য কাজ করবো এই আস্থা যে রেখেছেন সেই প্রত্যাশাপূরণে পিছপা হব না।’

মমতা ব্যানার্জীর আহ্বানেই রাজনীতিতে নাম লিখিয়েছিলেন মিমি চক্রবর্তী। ছবি: সংগৃহীত

রেকর্ড সংখ্যক ভোটের ব্যবধানে জিতে যাবেন আশা করেছিলেন কি না এমন প্রশ্নের জবাবে মিমি বলেন, ‘এটা বলা ভীষণ কঠিন। প্রত্যেকে নিজের মতো করে অনুমান করে, আমিও করেছিলাম। বিশ্বাস করেছিলাম দুই লাখের বেশি ভোট পাবো। সেটা সত্যি হয়েছে, এমনকী দ্বিগুণ হয়েছে। আমি আনন্দিত। দু’দিকের কাজের সমতা বজায় রেখে চলার চেষ্টা করবো। মানুষ আমার ওপর আস্থা রেখেছেন সেই বিশ্বাস আমি ভাঙবো না।’

সূত্র: ডিএনএ

প্রিয় বিনোদন/রুহুল