নেহা ধুপিয়া। ছবি: সংগৃহীত

বিমানের বাথরুম আটকে মেয়েকে স্তন্যপান করিয়েছিলেন নায়িকা!

সম্প্রতি আন্তর্জাতিক স্তন্যপান সপ্তাহে মাতৃত্ব ও সন্তানকে স্তন্যপান করার প্রয়োজনীয়তা নিয়ে মুখ খুললেন অভিনেত্রী নেহা ধুপিয়া।

শামীমা সীমা
সহ সম্পাদক
প্রকাশিত: ০৩ আগস্ট ২০১৯, ১৩:৪৩ আপডেট: ০৩ আগস্ট ২০১৯, ১৩:৪৩
প্রকাশিত: ০৩ আগস্ট ২০১৯, ১৩:৪৩ আপডেট: ০৩ আগস্ট ২০১৯, ১৩:৪৩


নেহা ধুপিয়া। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) গতবছর ১০ মে চুপিসারে অঙ্গদ বেদির সঙ্গে সাতপাকে বাধা পড়েন বলিউড নায়িকা নেহা ধুপিয়া। বিয়ের কয়েকমাস বাদেই জানা গেলো, অন্তঃসত্ত্বা নেহা। এরপর কন্যা সন্তানের মা হন তিনি। তাই বলে ক্যারিয়ারে বিরতি নেননি বলিউড অভিনেত্রী। অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় তো বটেই, কন্যা মেহেরকে জন্ম দেওয়ার পরেও চুটিয়ে কাজ করছেন তিনি।

সম্প্রতি আন্তর্জাতিক স্তন্যপান সপ্তাহে মাতৃত্ব ও সন্তানকে স্তন্যপান করার প্রয়োজনীয়তা নিয়ে মুখ খুললেন অভিনেত্রী নেহা ধুপিয়া। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মেয়ে মেহেরের সঙ্গে কাটানো কিছু মুহূর্তের বিশেষ একটি ভিডিও পোস্ট করেছেন নেহা। যেখানে অবশ্য নেহা মেয়ের মুখ প্রকাশ্যে আনেননি। মা হওয়ার পর কীভাবে কাজ ও সন্তানের জন্য সময় ভাগ করে নিয়েছেন এই ভিডিওতে সে বিষয়ে কথা বলেছেন নেহা।

অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় স্বামী অঙ্গদ বেদির সঙ্গে নেহা ধুপিয়া। ছবি: সংগৃহীত

‘হেলিকপ্টার ইলা’ সিনেমার অভিনেত্রী জানান, মা হওয়ার বিষয়টা তার কাছে সহজ ছিল না। গত ৮ মাস তার ভীষণ কঠিন কেটেছে। মেয়ের জন্য অনেক রাত জেগেই কাটাতে হয়েছে তাকে। আবার মাতৃত্ব তাকে একসঙ্গে অনেক আনন্দও দিয়েছে। মেয়েকে বড় করার ক্ষেত্রে তিনি তার স্বামী ও পরিবারের সবার কাছ থেকে সহায়তা পাচ্ছেন। সেই সঙ্গে সন্তানকে স্তন্যপান করানো যে কতটা প্রয়োজনীয় তা নিয়েও এই ভিডিও বার্তায় মুখ খুলেছেন অভিনত্রী।

এই প্রসঙ্গে রিয়েলিটি শো ‘এমটিভি রোডিজ’ এর বিচারক নেহা বলেন, ‘টানা ৬ মাস শুধুমাত্র স্তন্যপান করানো ছাড়া মেহেরকে খাওয়ানোর আর কিছুই ছিল না। এটা মা হিসাবে আমার কাছে ভীষণ কঠিন ছিল। বিশেষ করে যখন এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যেতে হত, তখন ওকে কীভাবে খাওয়াবো আমি বুঝতে পারতাম না। এমনও হয়েছে, বিমানে করে কোথাও যাচ্ছি অথচ মেহেরের খিদে পেয়েছে। ওকে কীভাবে খাওয়াবো বুঝতে পারছিলাম না। অগত্যা বিমানের বাথরুমে গিয়ে বসে ওকে স্তন্যপান করাতে হয়েছে।’

মেয়ে মেহেরের সঙ্গে নেহা ধুপিয়া। ছবি: সংগৃহীত

নেহা আরও বলেন, ‘মা হিসাবে সন্তান যখন খিদের জন্য কাঁদবে সেটা সহ্য করা যায় না। টানা ১৫ মিনিট বাথরুম আটকে রাখার জন্য আমি অন্য যাত্রীদের কাছে ক্ষমা চেয়েছি। তবে আমার মনে হয়েছে সন্তানকে স্তনপান করা নিয়ে প্রত্যেক মায়ের স্বাধীনতা থাকা উচিত। এখানে কোনো জড়তা থাকা ঠিক নয়। আন্তর্জাতিক স্তন্যপান দিবসে আমি পৃথিবীর সমস্ত মায়েদের এ বিষয়ে উৎসাহ দিতে চাই। আমি চাই স্তন্যপান নিয়ে সব মায়েরাই তাদের অভিজ্ঞতা ভাগ করুন।’

সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস 

প্রিয় বিনোদন/আশরাফ