ফাইল ছবি: প্রথম আলো

ক্রিকেটে সাকিবের যত বিতর্ক

সাকিব আল হাসান নিঃসন্দেহে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সেরা তারকা। বাংলাদেশি ক্রিকেট সমর্থকরা অনেকে সাকিবকে দলের প্রধান বিজ্ঞাপনও মনে করেন। তবে ব্যাট বলের পারফরম্যান্সে যেমন এগিয়ে তিনি, তেমনি বিভিন্ন সময়ে দিয়েছেন নানা বিতর্কের জন্ম।

প্রিয় ডেস্ক
ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশিত: ১১ জুন ২০২১, ২১:৫৪ আপডেট: ১২ জুন ২০২১, ২০:৫১
প্রকাশিত: ১১ জুন ২০২১, ২১:৫৪ আপডেট: ১২ জুন ২০২১, ২০:৫১


ফাইল ছবি: প্রথম আলো

সাকিব আল হাসান নিঃসন্দেহে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সেরা তারকা। বাংলাদেশি ক্রিকেট সমর্থকরা অনেকে সাকিবকে দলের প্রধান বিজ্ঞাপনও মনে করেন। তবে ব্যাট বলের পারফরম্যান্সে যেমন এগিয়ে তিনি, তেমনি বিভিন্ন সময়ে দিয়েছেন নানা বিতর্কের জন্ম। জুয়াড়িদের কাছ থেকে ম্যাচ পাতানোর প্রস্তাব পেয়ে আইসিসির দুর্নীতি বিরোধী ইউনিটকে না জানানোয় পেয়েছেন শাস্তি। এই যেমন আজ আবাহনীর বিপক্ষে ম্যাচে সাকিব মেজাজ হারিয়ে স্টাম্পে লাথি দেওয়া ও স্টাম্প আছাড় দিয়ে নতুন বিতর্কের জন্ম দিলেন। 

লাথি মেরে স্টাম্প ভাঙলেন সাকিব—প্রথম আলো (১১ জুন ২০২১): একটি এলবিডব্লুর আবেদনে সাড়া পাননি আম্পায়ার ইমরান পারভেজের কাছ থেকে। সাকিব আল হাসান তাতেই হারিয়ে বসলেন মেজাজ। বিতণ্ডায় জড়ালেন, লাথি দিয়ে ভাঙলেন স্টাম্প।

আজ ঢাকা প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগে মুখোমুখি হয়েছে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আবাহনী লিমিটেড ও মোহামেডান স্পোর্টিং। সময়ের ফেরে আবাহনী–মোহামেডান ক্রিকেট দ্বৈরথ রঙ হারালেও সাকিবের কল্যাণে আজ অতীতের উত্তেজনা ফিরল মাঠে। যদিও লাথি মেরে স্টাম্প ভাঙার মতো ঘটনা অতীতে কখনো ঘটেছে কিনা, সেটি গবেষণার বিষয়।

স্টাম্প ভাঙার পর খালেদ মাহমুদের সঙ্গেও লেগে গেল সাকিবের—প্রথম আলো (১১ জুন ২০২১): আম্পায়ার আবেদনে সাড়া না দেওয়ায় মেজাজ হারিয়ে সাকিব আল হাসান লাথি মেরে ভাঙলেন স্টাম্প। স্টাম্প ভাঙা আর আম্পায়ারের সঙ্গে উত্তপ্ত বাক্যবিনিময়েই শেষ হয়নি। এর দ্বিতীয় অংশে মঞ্চে আবির্ভূত হন আবাহনীর কোচ খালেদ মাহমুদ। আবাহনীর ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে তুমুল বৃষ্টি নামলে আম্পায়ার মাহফুজুর রহমান খেলা বন্ধ ঘোষণা করেন। তিনি যখন মাঠকর্মীদের কাভার আনার ইশারা দিচ্ছেন, তখন সাকিব আম্পায়ারের দিকে এগিয়ে গিয়ে তিনটি স্টাম্পই তুলে উইকেটের ওপর ছুড়ে মারেন। তিনি এ সময় আম্পায়ারকে প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ হয়ে কিছু একটা বলছিলেন।

খালেদ মাহমুদের দৃশ্যপটে প্রবেশ এর পরপরই। খেলোয়াড়েরা যখন মাঠ ত্যাগ করছিলেন, তখনো নিজেকে সামলাতে বেশ কষ্ট হচ্ছিল সাকিবের। তিনি এ সময় আবাহনীর ড্রেসিংরুমের দিকে তাকিয়ে কিছু বললে খেপে গিয়ে তেড়ে আসেন কোচ মাহমুদ। এগিয়ে যান সাকিবও। মোহামেডানের বেশ কয়েকজন ক্রিকেটার তখন জাপটে ধরে থামান সাকিবকে। মাহমুদকেও থামান মোহামেডানের শামসুর রহমান।

কী হবে সাকিবের—প্রথম আলো (১১ জুন ২০২১): আবাহনীর বিপক্ষে ম্যাচে মোহামেডান অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের স্টাম্পে লাথি দেওয়া ও স্টাম্প আছাড় দেওয়ার ঘটনাটি খতিয়ে দেখবে সিসিডিএম। ম্যাচের দুই আম্পায়ার ইমরান পারভেজ ও মাহফুজুর রহমান এবং ম্যাচ রেফারি মোরশেদুল আলমের প্রতিবেদনের জন্য অপেক্ষা করছে সিসিডিএম।

বিসিবির পরিচালক ও সিসিডিএম–প্রধান কাজী ইনাম আহমেদ আজ বিকেলে সাংবাদিকদের বলেন, ‘এখানে ম্যাচ রেফারি, আম্পায়াররা একটা প্রতিবেদন দেবে। এখানে নিয়মনীতি যা থাকার, সবই আছে। নিয়ম ভাঙলে কী হয়, সেটাও সবাই জানে। যে প্রতিবেদনই আসুক, আমরা সেই অনুযায়ী কাজ করব।

সাকিবের আচরণ নিয়ে প্রতিবেদনের অপেক্ষায় সিসিডিএম—বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম (১১ জুন ২০২১): মাঠে বসেই সাকিব আল হাসানের অবিশ্বাস্য আচরণ দেখেছেন ঢাকার ক্লাব ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা সিসিডিএমের কর্তারা। তবে এই বিষয়ে তাদের কোনো করণীয় নেই। সিসিডিএম চেয়ারম্যান কাজী ইনাম আহমেদ জানালেন, নিয়ম অনুযায়ীই হবে সব। আম্পায়ার ও ম্যাচ রেফারির প্রতিবেদনের পর আচরণবিধি অনুযায়ী নেওয়া হবে সিদ্ধান্ত।   

‘মানবিক ভুলের’ জন্য ক্ষমা চাইলেন সাকিব—বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম (১১ জুন ২০২১): ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ টি-টোয়েন্টির ম্যাচে মাঠে বিতর্কিত আচরণের পর ক্ষমা চাইলেন সাকিব আল হাসান। বৃষ্টিবিঘ্নিত ম্যাচটি শেষ হওয়ার পরপরই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মোহামেডানের অধিনায়ক বলেন, ভবিষ্যতে আর এসবের পুনরাবৃত্তি করবেন না তিনি।

বিসিবিকে দেওয়া চিঠিতে কী লিখেছিলেন সাকিব—প্রথম আলো (২১ মার্চ ২০২১): শ্রীলঙ্কায় বাংলাদেশ দলের টেস্ট সিরিজের সময় সাকিব আল হাসান আইপিএল খেলতে চেয়ে ছুটি নিয়েছেন ক্রিকেট বোর্ড থেকে। বিসিবি ছুটি মঞ্জুরও করেছে। ছুটি দিয়ে আবার সাকিবের সমালোচনাও করেছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান। প্রশ্ন তুলেছেন সাকিবের টেস্ট খেলার ইচ্ছে নিয়ে। খুব স্বাভাবিকভাবেই যা নিয়ে আলোচনার ঝড় বয়ে গেছে বাংলাদেশের ক্রিকেটাঙ্গনে। তবে এ নিয়ে এতদিন সাকিব ছিলেন মুখে কুলুপ এঁটে। নিজের অবস্থান পরিস্কার করতে সাকিবকে কিছুই বলতে শোনা যায়নি।

সাকিবের বক্তব্যে কঠোর বিসিবি—প্রথম আলো (২১ মার্চ ২০২১): আগুন জ্বালিয়ে দিয়েছেন সাকিব আল হাসান। সেই আগুনের উত্তাপ পৌঁছে গেছে গুলশানে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসানের বাড়ি পর্যন্ত। পরশু রাতে এক ফেসবুক লাইভে সাকিবের করা বিসিবির সমালোচনার পর করণীয় ঠিক করতে কাল সন্ধ্যায় সেখানেই সভায় বসেছিলেন বোর্ডের কয়েকজন শীর্ষ কর্মকর্তা।

বিতর্কের পর মুখে কুলুপ সাকিবের—প্রথম আলো (২৫ মার্চ ২০২১): আপাতত একদম চুপ সাকিব আল হাসান। বোর্ডের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলে কদিনের জন্য বাংলাদেশের ক্রিকেটকে রীতিমতো কাঁপিয়ে দিয়েছিলেন। কিছুদিন আগে যুক্তরাষ্ট্রে তৃতীয় সন্তানের বাবা হয়েছেন। দেশে ফিরে এখন শুরু করেছেন আইপিএলের প্রস্তুতি। আর বিতর্কের জন্ম যেন না হয়, সেটা নিশ্চিত করতে মুখে যেন কুলুপ এঁটে রয়েছেন। সাংবাদিকেরা অনেক চেষ্টা করেও তাঁর মুখ থেকে বের করতে পারছেন না একটা কথাও।

আইপিএল খেলতে জাতীয় দল থেকে ছুটি নিলেন সাকিব—প্রথম আলো (১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১): আইপিএলে খেলার জন্য বিসিবির কাছে আগেই মৌখিকভাবে ছুটি চেয়েছেন সাকিব। বিসিবির সবুজসংকেত পাওয়ার পর পরশু রাতে ক্রিকেট পরিচালনা প্রধান আকরাম খানকে ছুটি চেয়ে ই–মেইলও পাঠান তিনি। এরপর কাল আইপিএলের জন্য সাকিবকে ছুটি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় বিসিবি। বিষয়টি নিশ্চিত করে কাল রাতে আকরাম খান প্রথম আলোকে বলেন, ‘সাকিব এই মুহূর্তে টি–টোয়েন্টি খেলতে চায়। টেস্ট খেলতে চায় না। আইপিএলের জন্য ছুটি চেয়েছে সে। আমরাও মনে করি কেউ খেলতে না চাইলে তাকে জোর করে খেলিয়ে লাভ নেই। তাই সাকিবকে ছুটি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বোর্ড।’ পরশু রাতে জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়কদের সঙ্গে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসানের সভায় এ নিয়েও আলোচনা হয়েছে।

কালীপূজা উদ্বোধন করলেন সাকিব—কালের কণ্ঠ (১৩ নভেম্বর, ২০২০): কয়েক দিন আগেই আইসিসির নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে উঠে সাকিব আল হাসান ধীরে ধীরে ফিরেছেন ক্রিকেটের মাঠে। অনুশীলনও শুরু করেছেন তিনি। চলছে বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টের অয়োজন। এই ক্রিকেট ব্যস্ততার মধ্যেও কলকাতায় গিয়ে কালীপূজা উদ্বোধন করলেন বিশ্ব ক্রিকেটের অন্যতম শ্রেষ্ঠ এই অলরাউন্ডার। 

বিতর্কের জবাবে ক্ষমা চাইলেন সাকিব—প্রথম আলো (১৬ নভেম্বর ২০২০): নিষেধাজ্ঞা শেষে দেশে ফেরার পর থেকেই একের পর এক ঘটনায় বিতর্কের সৃষ্টি হচ্ছে সাকিব আল হাসানকে নিয়ে। ৫ নভেম্বর দেশে ফিরে পরদিনই তিনি জনসমাগমে গিয়ে একটি সুপারশপ উদ্বোধন করেন। এরপর কলকাতায় যান ঝটিকা সফরে।

সংবাদমাধ্যমের খবর, সাকিব কলকাতায় গিয়েছিলেন পূজা উদ্বোধন করতে। পূজার আয়োজকেরাও সংবাদমাধ্যমে এই তথ্য দিয়েছেন। অনুষ্ঠানের ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।

সাকিবের পূজা উদ্বোধন করা দেশে অনেকেই সহজভাবে নিতে পারেননি। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে কয়েক দিন ধরেই হচ্ছে তীব্র সমালোচনা। এর মধ্যেই গতকাল রাতে সিলেটের এক তরুণ ফেসবুক লাইভে এসে সাকিবকে হত্যার হুমকি দেন। তবে সাকিবের দাবি, কলকাতায় তিনি পূজা উদ্বোধন করতে যাননি।

সাকিব আল হাসান: পূজা বিতর্ক ইস্যুতে ক্ষমা চাওয়া ছাড়া আর 'কী বা করার ছিল' তার?—বিবিসি বাংলা (১৭ নভেম্বর ২০২০): বিতর্ক পিছু ছাড়ছেই না বাংলাদেশের ক্রিকেট সুপারস্টার সাকিব আল হাসানের। বেনাপোল সীমান্তে এক ভক্তের সেলফি তোলার চেষ্টা নিয়ে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার পর ভারতে পূজার অনুষ্ঠানে যোগ দেয়া এবং পরে তা নিয়ে হত্যার হুমকির পর ক্ষমা চেয়ে পোস্ট দেয়া- এসব কিছুই নিয়ে এখন তীব্র বিতর্ক ও আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে তিনি। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে একটি বড় অংশ ক্ষমা চাওয়ার জন্য সাকিবকে সাধুবাদ জানাচ্ছেন। কিন্তু ক্ষমা চেয়ে সাকিব একটি ভুল করলো, এমনটি মনে করা মানুষের সংখ্যাও কিন্তু কম নয়।

রাতে বিদেশ থেকে ফিরে সকালেই জনসমাগমে সাকিব—প্রথম আলো (০৬ নভেম্বর ২০২০): করোনার সময়টায় বিদেশ থেকে ফেরা যেকোনো ব্যক্তিরই কোয়ারেন্টিনে থাকা বাধ্যতামূলক। সাকিব আল হাসানের ক্ষেত্রে একটু ব্যতিক্রম ঘটনাই ঘটল। বাঁহাতি অলরাউন্ডার যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশে ফিরেছেন ৫ নভেম্বর বৃহস্পতিবার রাত দুইটায়। দেশে ফেরার ৯ ঘণ্টার মধ্যে সাকিব গুলশানে একটি সুপারশপ উদ্বোধন করতে যান।

সাকিব জুয়াড়ির তথ্য গোপন করেছেন ‘তিনবার'!—ডয়েচে ভেলে (২৯ অক্টোবর ২০১৯): আইসিসির সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, অন্তত তিনবার ‘দুর্নীতি বিষয়ক' তথ্য গোপন করেছেন সাকিব৷ ২০১৮ সালে বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা ও জিম্বাবোয়ের ত্রিদেশীয় সিরিজ এবং আইপিএল-এ একাধিকবার ফিক্সিং-এর প্রস্তাব পেয়েছিলেন সাকিব৷

১ বছরের স্থগিত নিষেধাজ্ঞাসহ ২ বছরের জন্য নিষিদ্ধ সাকিব—ডেইলি স্টার (২৯ অক্টোবর ২০১৯): এক বছরের স্থগিত নিষেধাজ্ঞাসহ দুই বছরের জন্য সব রকমের ক্রিকেটীয় কার্যক্রম থেকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে বাংলাদেশ টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক সাকিব আল হাসানকে। আইসিসির দুর্নীতি বিরোধী ইউনিটের কাছে দায় স্বীকার করে সাকিব এই সাজা মেনেও নিয়েছেন।

তিনবার জুয়াড়িদের কাছ থেকে ম্যাচ পাতানোর প্রস্তাব পেলেও আইসিসির দুর্নীতি বিরোধী ইউনিটকে না জানানোয় এই শাস্তি পেয়েছেন বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ক্রিকেট তারকা।

পাঠকের মন্তব্য(০)

মন্তব্য করতে করুন


আরো পড়ুন

loading ...